আজ - শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি, (হেমন্তকাল), সময় - সকাল ৮:৩৭

আলোচিত কলগার্ল ও ইয়াবা ব্যবসায়ী লাবনী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক যশোর শহরের বেজপাড়া চোপদারপাড়া আকবরের মোড় এলাকার আলোচিত ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং কলগার্ল লাবনী আক্তারকে প্রায় আড়াই হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক করেছে র‌্যাব। একই সাথে তার মা জোসনা বেগমকেও আটক করা হয়েছে। গত শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে শহরের বারান্দীপাড়া কদমতলার অম্বিকা বসু লেনস্থ লুৎফর রহমান মোল্যার দ্বিতীয়তলা বাড়ির নিচতলা থেকে তাদের আটক করা হয়।
এ ব্যাপারে কোতোয়ালি মডেল থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করেছে র‌্যাব। র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্প থেকে দেয়া তথ্যে জানা গেছে, শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে লুৎফর রহমানের বাড়ির নিচতলার ভাড়াটিয়া বাড়িতে ইয়াবা কেনাবেচা চলছে। সেখানে অভিযান চালিয়ে লাবনী আক্তার ও তার মা জোসনা বেগমকে আটক করা হয়। পরে তাদের দেখানো মতে রান্না ঘরের সানসেটের ওপর একটি মিষ্টির প্যাকেটের মধ্যে থেকে ২ হাজার ২০৭পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়। জব্দকৃত ইয়াবার মূল্য আনুমানিক ৬ লাখ ৬২ হাজার ১০০ টাকা।

লাবনী আটক

বেজপাড়া চোপদারপাড়া এলাকার একটি সূত্রে জানা গেছে, লাবনী শুধু ইয়াবা কারবারী না। সে একজন কলগার্ল হিসাবে পরিচিতি। এলাকার অনেক যুবক তার খপ্পড়ে পড়ে নগদ টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র খুইয়েছেন। লাবনীর একটি চক্রও আছে বেজপাড়া টিবি ক্লিনিক, চোপদারপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায়। প্রথমে সে একজন যুবককে টার্গেট করে। পরে তার সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলে খাতির জমিয়ে নেয়। এরপর তাকে সরাসরি অসামাজিক কাজের প্রস্তাব দেয়। ওই যুবক তার কথামতো কোন একটি বাড়িতে গেলে সে কৌশলে মোবাইল ফোনে জানিয়ে দেয় তার বাহিনীকে। এরপর ওই বাহিনীর সদস্যরা ঘরে ঢুকে প্রথমে মোবাইল ফোনে ছবি তোলে এবং পরে পুলিশের ভয় দেখিয়ে ৫০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। ভুক্তোভোগীরা মান সম্মানের কথা চিন্তা করে ওই যুবকদের চাহিদামত টাকা দিতে বাধ্য হয়।

সূত্রে আরো জানা গেছে, গত ঈদের ৩/৪ দিন আগে বেজপাড়া তালতলার মোড়ে এমন একটি ঘটনা ঘটেছে। একজন দোকানদারকে সোনার অলংকার বানানো প্রস্তাব দিয়ে তাকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে আটকে রেখে তার বাহিনীকে সংবাদ দেয়। ওই বাহিনী ঘরে ঢোকার আগেই লাবনী নিজে পড়নের কাপড় খুলে তাকে জড়িয়ে ধরে এবং তার সহযোগিরা তা ভিডিও করে। এরপর নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে তার কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, এখনই লাবনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না দিলে সে আরো অনেক মানুষকে ফাঁসাবে।

আরো সংবাদ