খুলনা সদরে নৈাকার মাঝি হচ্ছেন শেখ জুয়েল!

নিজস্ব প্রতিনিধি : সকল জল্পনা-কল্পনা শেষে খুলনা সদর, সোনাডাঙ্গা ও লবণচরা থানা এলাকা নিয়ে গঠিত খুলনা-২ আসনের নৌকার মাঝি হতে যাচ্ছেন বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদ জুয়েল। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রার্থী হিসাবে জুয়েলকে সবুজ সংকেত দিলেন। একজন সাদামনের মানুষ হিসাবে পরিচিত, সদালাপি, সদা হাসিখুশি, মিডিয়াবান্ধব খুলনা নৌ পরিবহন মালিক সমিতির বিদায়ী সভাপতি শেখ সালাহউদ্দিন খুলনাবাসীর কাছে শেখ জুয়েল নামেই সমধিক পরিচিত। শেখ জুয়েল নেত্রীর তরফ থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ার কথা শনিবার মধ্যরাতে প্রথম সময়ের কাছে নিশ্চিত করেছেন। অনলাইন নিউজ পোর্টাল প্রথম সময় শেখ জুয়েল খুলনা সদর আসনে প্রার্থী হতে যাচ্ছেন- এমন একটি সংবাদ গত ৭ সেপ্টেম্বর প্রকাশ করেছিল। শেখ জুয়েল জানান, নিউইয়র্ক যাওয়ার আগে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে গেলে নেত্রী বলেন, যাও খুলনার দায়িত্ব দিলাম, গিয়ে কাজ করো। টেলিফোনে শেখ জুয়েল আরো জানান, বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা একই সঙ্গে দল ও আমাদের অভিভাবক। দেশবাসীর আস্থার শেষ স্থল। খুলনাবাসীর দোয়া চেয়ে জুয়েল বলেছেন, নেত্রী আমার ওপর আস্থা রেখে যে দায়িত্ব দিতে যাচ্ছেন তা যেন সফলভাবে পালন করতে পারি। শেখ জুয়েল জানান, নেত্রীর কথা আমার জন্য সবুজ সংকেত, আমার জন্য আশীর্বাদ, এটাই মনোনয়ন। শেখ জুয়েল জানান, নেত্রীর সঙ্গে আলাপকালে খুলনা-৪ আসনের এমপি আব্দুস সালাম মুর্শিদী উপস্থিত ছিলেন। আলাপকালে শেখ জুয়েল জানান, তার আম্মা গুরুতর অসুস্থ। বড় ভাই শেখ হেলাল এমপি অসুস্থ হয়ে সিঙ্গাপুরে আছেন। ছোট ভাই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শেখ সোহেল এশিয়া কাপ ক্রিকেট খেলা চলার কারণে দুবাইয়ে অবস্থান করছে। মা একটু সুস্থ হলেই এবং শেখ হেলাল ও শেখ সোহেল দেশে ফিরলেই তিনি দুই ভাইকে সঙ্গে নিয়ে খুলনা আসবেন। উল্লেখ্য, এই আসনে বর্তমানে এমপি রয়েছেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মিজানুর রহমান মিজান। শনিবার রাতে তিনি তার প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেছেন, জুয়েল সরাসরি রাজনীতিতে আসছে এটা আমাদের সবার জন্য আনন্দের সংবাদ। দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা যে সিদ্ধান্ত নেবেন তা অতীতে যেমন মেনেছি, ভবিষ্যতেও মেনে চলব।

শেখ সালাহ উদ্দীন জুয়েল  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ভাই শেখ আবু নাসেরের মেজো ছেলে। তার বাবা শেখ আবু নাসেরকেও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।জুয়েলের বড় ভাই শেখ হেলালউদ্দিন বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য। ৩য় ভাই শেখ সোহেল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক।