যশোরে মণিরামপুরে সংখ্যালঘুদের উপর হামলা- এমপি কে অবাঞ্চিত ঘোষণা- গণভবন ঘেরাও!

বিশেষ প্রতিনিধি (মণিরামপুর) যশোর।। যশোরের মণিরামপুরের বৃহস্পতিবার রাতে সাংসদ কর্তৃক সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর সন্ত্রাসী হামলা ও পুলিশি হয়রানির ঘটনা ঘটেছে।

যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসনে কে হবেন সাংসদ কে পাচ্ছেন মনোনয়ন এসব প্রসঙ্গে কয়েকদিন ধরে গুজব চলে আসছে, কখনো বর্তমান সাংসদ স্বপন ভট্টাচার্য, কখনো পিযুষ কান্তি আবার কখনো আমজাদ হোসেন লাভলুর নাম ভেসে চলছে মণিরামপুরের বাতাসে।

এ সময় মণিরামপুরের সংখ্যালঘু (হিন্দু) সম্প্রদায় তাদের মনোনীত প্রার্থী ডা.জেসমিন আরা কে নির্বাচিত করার লক্ষ্যে একাট্টা হয়ে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলার সিদ্ধান্ত নেয়। তারই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার রাতে তারা ঢাকার উদ্দেশ্যে রিজার্ভ বাস নিয়ে মণিরামপুর থেকে যাত্রা শুরু করেন।

ঘটনা জানাজানি হলে বর্তামান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য তাদের গতিরোধ করার চেষ্টা করেন, সে চেষ্টা ব্যর্থ হলে এলাকার তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীদের দিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়, এসময় বিভিন্ন জায়গায় ব্যারিকেড এবং মারধরের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় গাড়িতে অবস্থানরত পুরুষরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও পরবর্তীতে পুলিশি হয়রানি শুরু হয়েছে অনেকেই রয়েছেন বাড়ী ছাড়া।

সন্ত্রাসী হামলার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে মহিলাদের গাড়ি থেকে নামিয়ে পুলিশি ব্যারিকেডে প্রায় ৩০ মাইল রাস্তা শাস্তি স্বরূপ হাঁটানো হয়েছে।

অবশেষে আজ সকালে ঢাকায় পৌঁছুতে সক্ষম হয়েছে প্রায় হাজার খানেক সংখ্যালঘু মহিলা সমর্থকরা। তারা গণভবনের সামনে অনড় অবস্থান নিয়ে ডা. জেসমিন আরা কে মনোনয়ন ও এমপি স্বপন ভট্টাচার্য কে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। এবং চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না নিয়ে ঘরে ফিরবেন না বলেও হুশিয়ারি প্রদান করেছেন তাঁরা।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আজ রাত ১০ টার দিকে প্রধান প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সহকারী সাইফুজ্জামান শেখর তাদের সাথে কথা বলেছেন। এখন প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের জন্য গণভবনের সামনেই অবস্থান নিয়ে অপেক্ষা করছেন তাঁরা।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সাবেক সাংসদ মৃত টিপু সুলতান ও ডা.জেসমিন আরা দম্পতির সন্তান হুমায়ন কবির সাদাব জানান, গণভবনের সামনে প্রায় হাজার খানেক মানুষ সমাবেত হয়েছে-তাদের ভালবাসায় অভিভূত সাদাব। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর হামলার নিন্দা জানিয়ে সাদাব বলেন এত লড়াই সংগ্রাম করে তারা ঢাকা এসেছেন তাঁদের প্রতি আমারা কৃতজ্ঞ। হামলাকারীদের বিচারের আওতায় আনার দাবিও জানান সাদাব।

এদিকে যশোর – ৩ সদর আসনও ফুঁসে উঠার গুঞ্জন শোণা যাচ্ছে। সূত্র জানায়, যশোর সদর ৩ আসনে যদি জেলা আ’লীগ সম্পাদক শাহিন চাকলাদার কে মনোনয়ন না দেয়া হয় তাহলে তারাও গণভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন। নির্ভরযোগ্য সূত্র আরো জানায়, জনবিস্ফোরণের ইঙ্গিত নিয়ে একাট্টা হতে শুরু করেছে সদর-৩ আসনের শাহিন সমর্থকরা। এর আগে বিভিন্ন গণমাধ্যম জরিপে শাহিন চাকলাদারের সমর্থন প্রায় ৮০ শতাংশ উঠে আসে।