সাংবাদিক সুর্বনা নদী হত্যা মামলায় আরও একজন র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার

পাবনা থেকে স্টাফ রিপোর্টার || র‌্যাবের জালে আটকে গেছে সাংবাদিক সুবর্ণা নদী হত্যা মামলার এজাহারনামীয় তিন নম্বর অভিযুক্ত শামসুজ্জামান ওরফে মিলন (৪০) । তিনি পাবনা শহরের গোপালপুর এলাকার মৃত আব্দুর রহিমের পুত্র। তিনি সুবর্ণা নদীর সাবেক শ্বশুর আবুল হোসেনের মালিকানাধীন ইন্ড্রাল ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীর ব্যবস্থাপক। র‌্যাব-১২, সিপিসি-২ পাবনা ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লে. কমান্ডার মো. রুহুল আমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আজ রবিবার দুপুর ১২টায় র‌্যাব কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিং-এ মিলনকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য নিশ্চিত করা হয়। তাকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় শনিবার দিবাগত রাতে । সে র‌্যাবকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। এ গুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে । গ্রেফতারকৃত মিলনকে সুবর্না নদী হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে পাবনা সদর থানায় সোপর্দ করা হবে এর পর তাকে ডিবি হেফাজতে নেওয়া হবে। পরবর্তী আইনী প্রক্রিয়া এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা অরিবিন্দ সরকার গ্রহণ করবেন । পাবনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল ) ইবনে মিজান জানিয়েছেন, মামলার এজহারনামীয় এবং অজ্ঞাত অভিযুক্তদের ধরতে পুলিশ- র‌্যাবের ড্রাইভ অব্যাহত আছে। এর আগে নদীর সাবেক শ্বশুর শিল্পপতি আবুল হোসেনকে পুলিশ গ্রেফতার করে। ইবনে মিজান আরও জানান, এই মামলার মনিটর করছেন, অতিরিক্ত সিনিয়র পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস। পাবনার পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম (পিপিএম) পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন কোন ক্রাইমের সাথে আপোষ নয় ।

প্রসঙ্গত: গত ২৮ আগস্ট রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টার দিকে পাবনা প্রেসক্লাবে সামনে রানা কমপ্লেক্সে তার আনন্দ টিভি পাবনার কার্যালয় থেকে বাড়ি ফেরার পথে রাধানগর মহল্লার আদর্শ বালিকা স্কুলের বাইপাস লেনের ভাড়া বাসায় কেউ কলিং বেল টিপলে নদী দরজা খোলার সাথে সাথে দুর্বৃত্তরা তার কুপিয়ে চলে যায়। পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।