আজ - শনিবার, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি, (শরৎকাল), সময় - বিকাল ৩:৩৩

কচুয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা রাজ্জাক শরীফের দাফন সম্পন্ন, জানাজায় মানুষের ঢল

নিজেস্ব সংবাদদাতা ।। যশোর সদর উপজেলার কচুয়ায় বিশিষ্ট আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুর রাজ্জাক শরীফ এর নামাজে জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার (২৩ জুলাই) দুপুর ২ টা ৩০ মিনিটে কচুয়া ইউনিয়নের পাঁচপীরতলা ঈদগাহ মাঠে মরহুমের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। মৃত্যুর খবর শুনে সকাল থেকেই বিভিন্ন শ্রেনি-পেশার মানুষ রাজ্জাক শরীফকে শেষ বারের মত দেখতে আসেন। একপর্যায়ে জানাযার নামাজে মানুষের ঢল নেমে আসে। জানাযা শেষে মরহুমের লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

জানাজার নামাজের পূর্বে বক্তব্য রাখেন যশোর সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও আরবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শাহারুল ইসলাম। এসময় তিনি মরহুম আব্দুর রাজ্জাক শরীফের রাজনৈতিক ও সামাজিক অবদানের কথা ‍তুলে ধরেন। বক্তব্যে শাহারুল ইসলাম বলেন, আমরা কচুয়া ইউনিয়নের একজন যোগ্য নেতাকে হারালাম। রাজ্জাক শরীফের মৃত্যুতে যশোর সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ পরিবার গভীর ভাবে শোকাহত।

এসময় রাজনৈতিক সহকর্মী ও স্বজনরা তার জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন। দাফন শেষে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেন হাজার হাজার মানুষ।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ১৪ নং নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোদাচ্ছের আলী, নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য জাকির হোসেন, সদর থানা হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি এইচ এম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক ও নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মনিরুল ইসলাম হিমু, রামনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মাহমুদ হাসান লাইফ, কচুয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী পলাশ, নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সালাম আসাদ (পারভেজ), নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শাহীন আলমসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, প্রেসক্লাব রূপদিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও সর্বস্তরের জনগণ।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আনুমানিক ২ টা ৪০ মিনিটে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। এর আগে গত ২০ জুলাই এক সড়ক দুর্ঘটনায় তার ডান পাজরের ০৪ টি হাড় ভেঙে যায়। ঐদিন ‍তিনি ব্যবসায়িক কাজে মনিরামপুরে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৫০ বছর। তিনি  স্ত্রী, এক পূত্র, দুই কন্যা, আত্মীয় স্বজন ও অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন । ওনার মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বিভিন্ন মহল থেকে তার রূহের মাগফিরাত কামনাসহ শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানানো অব্যাহত রয়েছে।

আরো সংবাদ
যশোর জেলা
ফেসবুক পেজ
সর্বাধিক পঠিত