আজ - মঙ্গলবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১লা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি, (শরৎকাল), সময় - ভোর ৫:১৯

দুই তরুণকে আপত্তিকর অবস্থায় আটকের পর পুলিশে দিলেন এলাকাবাসী

শার্শা (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের শার্শায় প্রেমের সম্পর্কে আপত্তিকর অবস্থায় প্রেমিকের সাথে এসএসসি এক পরীক্ষার্থী (১৮) । কিশোরী প্রেমের সম্পর্কে প্রেমিক হাসান আলীকে (২০) মোবাইলে কল রাতে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসে। এ ঘটনায় স্থানীয় গ্রামের লোকজন প্রেমিক হাসানসহ তার সহযোগীকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে আরো তিনজন পলাতক রয়েছে বলে গ্রামবাসী জানায়।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে শার্শা উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের কন্দপপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ভিকটিম স্কুল ছাত্রীকে পুলিশ প্রহরায় পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের বড় নিজামপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী শাহাজাহান মল্লিকের ছেলে হাসান আলী (২০) ও একই গ্রামের রিজাউল করিমের ছেলে মাসুদ (২০)।

এছাড়া এ ঘটনায় জড়িত একই ইউনিয়ের কন্দপপুর গ্রামের মিজান চৌকিদারে ছেলে নুরুজ্জামান (২৭), ফটিকের ছেলে সাকিব (২৮), জাহানের ছেলে নাসিম হোসেন (২৮) পলাতক রয়েছে।

স্থানীয় এক ইউপি সদস্য ও কয়েকজন গ্রামবাসী জানান, ধর্ষনের শিকার স্কুল ছাত্রীর মা অসুস্থতায় হাসপাতালে ভর্তি থাকায় বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফাঁকা বাড়িতে মুঠোফোনের মাধ্যমে প্রেমিক হাসান আলীকে নিয়ে আসে। তারা একই রুমে অবস্থান করছিলো। পাশের একটি চায়ের দোকানে অবস্থান করছিল হাসানের বন্ধু মাসুদ। একই সময়ে ঐ এলাকার তিন যুবক নুরুজ্জামান, সাকিব ও নাসিম বিষয়টি দেখতে পেয়ে তাদের দুজনকে অনৈতিক কাজে লিপ্ত দেখে দুই বন্ধু ও ভিকটিম কিশোরীকে আটক করে মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে। একপর্যায়ে হাসানকে তারা মারধর করে আটকে রেখে নুরুজ্জামান, সাকিব ও নাসিম ভিকটিমকে জোরপূর্বক ধর্ষন করে বলে সূত্রে জানা যায় । পরে স্থানীয় লোকজন ও পরিবারের লোকজনকে বলে মেয়েটির সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকাতে প্রেমিকসহ বন্ধু মাসুদকে আটক করেন তারা। স্থানীয় লোকজন আটক হাসান আলী ও মাসুদকে পরবর্তীতে গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যদের সংবাদ দিলে ঘটনাস্থল থেকে দুজনকে আটক করে শার্শা থানায় নিয়ে যায়। বর্তমানে এলাকা থেকে নুরুজ্জামান, সাকিব ও নাসিম পালিয়ে যায়।

শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় দুই জনকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। এখনো থানায় কোন অভিযোগ পায়নি। মেয়েটি যেহেতু এসএসসি পরীক্ষার্থী সে কারণে তাকে পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা শেষে মেয়েটির জবানবন্দী গ্রহণ করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো সংবাদ
যশোর জেলা
ফেসবুক পেজ
সর্বাধিক পঠিত