আজ - মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি, (বর্ষাকাল), সময় - বিকাল ৩:৫২

কুষ্টিয়ায় ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ৩৫.০৯ শতাংশ, মৃত্যু ১

কুষ্টিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৩ জন। মারা গেছেন একজন।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে জেলা সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল ইসলাম দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাবের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় ২২২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন ৭৩ জন। শনাক্তের হার ৩৫ দশমিক ০৯ শতাংশ।

তার আগের ২৪ ঘণ্টায়ও ২২২ জনের পরীক্ষা হয়। সেখানে করোনা পজিটিভ ছিলেন ৬৭ জন ও শনাক্তের হার ছিল ৩৩ দশমিক ৫০ শতাংশ। তার আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ২৭ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের ৫০টি শয্যা করোনা ইউনিটে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত করোনা রোগী ভর্তি আছেন ১০৫ জন। বুধবার ছিলেন ৫৪ জন।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক তাপস কুমার সরকার জানিয়েছেন রোগীর সংখ্যা বাড়ছেই।

অন্যদিকে, গত ৩ জুন থেকে সাত দিনে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১২ জন। জেলায় মোট মারা গেছেন ১২৩ জন।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ডেইলি স্টারকে জানিয়েছেন জুনের শুরু থেকেই জেলায় করোনার বিস্তার বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ৩ জুন ১১৬টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয় ৩৪ জনের, আক্রান্তের হার ছিল ৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। গত ৪ জুন ২১৯টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হন ৩৭ জন, আক্রান্তের হার ১৬ দশমিক ৯। গত ৫ জুন ১৮৩ নমুনা পরীক্ষা করে ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়, আক্রান্তের হার ছিল ৮ দশমিক ৮২ শতাংশ।

গত ৬ জুন ২৩২টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয় ৫৬ জনের, আক্রান্তের হার ২৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ। গত ৭ জুন ১৮০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫০ জনের করোনা শনাক্ত হয় এবং এই আক্রান্তের হার ছিল ২৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ও শহরজুড়ে লকডাউনের বিষয়টি চিন্তা করা যেতে পারে। এটি এখন একটি সিদ্ধান্তের ব্যাপার।

তার তথ্য মতে, কুষ্টিয়ার ছয় উপজেলায় এ পর্যন্ত চার হাজার ৭৬৪ করোনা রোগীর মধ্যে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ও শহরের মধ্যে রয়েছেন দুই হাজার ৯৩৪ জন। জেলা সদরে এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৭১ জন। সমগ্র জেলায় মারা গেছেন ১২৩।

আরো সংবাদ
যশোর জেলা
ফেসবুক পেজ
সর্বাধিক পঠিত